ধর্ষণের মূল্য কি ৯০ হাজার টাকা?

0
29
ধর্ষণের মূল্য কি ৯০ হাজার টাকা?
প্রতীকী ছবি

অনলাইন ডেস্কঃ কিশোরীকে ‘ধর্ষণের পর’ মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে ঘটনা ধামাচাপা দিতে চেয়েছিল গ্রাম্য মাতব্বর। কিন্তু প্রভাবশালীদের চাপ বা হুমকিতে দমে যাননি মা। অপরাধীদের সমুচিত শাস্তির দাবিতে তিনি গেলেন আদালতে। আসামিদের রক্তচক্ষু বা হুমকি উপেক্ষা করে সাহসী মা আদালত প্রাঙ্গণে দাঁড়িয়ে যেকোনো সমঝোতা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে বিচারককে প্রশ্ন করেছেন ‘মেয়েকে ধর্ষণের মূল্য কি ৯০ হাজার টাকা?’

গত ৭ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়া নারী শিশু আদালতে এমন ঘটনায় জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও বিচার ব্যবস্থা নিয়ে নতুন করে ভাবাচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় সীমান্তবর্তী বড়ঠোটা গ্রামে গত বছর কিশোরীকে ‘অপহরণের পর  ধর্ষণের শিকার’ হয় বলে জানান তার মা। সেই ঘটনায় স্থানীয় মাতব্বরদের কথামত আপস-মীমাংসায় না গিয়ে কিশোরীর মা কসবা থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, কসবা উপজেলার গোপিনাথপুর ইউনিয়নের নোয়াগাও  গ্রামের সাইফুল মিয়া (২২), খোকন মিয়া (৩৫) ও হরিয়াবহ গ্রামের শামিম মিয়া (৩২)। এ ঘটনার পর আসামিরা পালিয়ে যান। পুলিশও তদন্তের পর এই তিনজনের নামে আদালতে চার্জশিট দেয়।

মামলার প্রধান আসামি সাইফুল সাত মাস পলাতক থাকার পর গত ৭ মার্চ আদালতে আত্মসমর্পণ করে। সাইফুলের পক্ষ নেওয়া গ্রাম্য মাতব্বররা সেদিন সেই মাকে ‘জোরপূর্বক’ আদালতে নিয়ে যান। মায়ের অভিযোগ, মাতব্বর  মোর্শেদ মিয়া, আবদুল হান্নান তাকে ৯০ হাজার টাকা নিতে বাধ্য করেন।

এরপর মামলার বাদী কিশোরীর মাকে আদালতের কাঠগড়ায় আনা হলে তিনি বিচারককে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘হুজুর আমার মেয়ের ধর্ষণের মূল্য কি ৯০ হাজার টাকা ?  আমার ব্যাগে এই টাকা আছে। আমি ধর্ষনের বিচার চাই, টাকা চাই না ‘

এসময় আসামি পক্ষের ৭-৮ জন আইনজীবী হৈচৈ শুরু করেন। কিশোরীর মা সেই টাকা আসামি পক্ষের আইনজীবীদের দিয়ে দেন। পরে শুনানি শেষে আদালত আসামি সাইফুলকে জেল হাজতে পাঠান।

সেই মা বলেন, ‘প্রধান আসামি সাইফুল ইসলাম আমার মেয়ের সর্বনাশ করে পালিয়ে আমাকে নানাভাবে হয়রানি করেছে। আমি ওদের টাকা ফেরত দিয়েছি। আমি আদালতে বিচার চেয়েছি।

‘এরা কেন টাকার বিনিময়ে মীমাংসা করতে আসে। আসামি পক্ষের লোকজন ও সর্দাররা আমাকে আদালতেই হুমকি দিয়েছে।’ বলে অভিযোগ করেন তিনি।

গণকমুড়া গ্রামের অভিযুক্ত মাতব্বর মোর্শেদ সর্দার বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার কিশোরীর মায়ের সম্মতিতেই আমি হান্নান ও কবির মিয়াকে নিয়ে এর মীমাংসা করেছিলাম। কারণ মেয়েটি সুন্দরী এবং তার ভবিষ্যত চিন্তা করে এমনটি করেছিলাম। কিন্তু আদালতে গিয়ে ধর্ষিতার মা কথা রাখেননি।  মেয়েটির মা প্রতারণা করেছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here