বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলনমেলা উষ্ণ অভ্যর্থনায় অতিথিদের বরণ, পণ্য মেলার উদ্বোধন

0
25
বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলনমেলা উষ্ণ অভ্যর্থনায় অতিথিদের বরণ, পণ্য মেলার উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রীর ৫০ বছর পূর্তিতে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের উদ্যোগে বাংলাদেশ-ভারত ৫ম সাংস্কৃতিক মিলনমেলা-২০২২, রাজশাহীতে অংশ নিতে শুক্রবার ভারতীয় অতিথিরা রাজশাহীতে এসেছেন। আর সাংস্কৃতিক মিলনমেলার অংশ হিসেবে উপলক্ষে রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সহযোগিতায় রাজশাহী কলেজ মাঠে মেলা শুরু হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে ৫টায় রাজশাহী কলেজ মাঠে পণ্যমেলার উদ্বোধন করেন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

উদ্বোধন শেষে মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন সিটি মেয়র। মেলায় বিভিন্ন পণ্যের ৩৬টি স্টল স্থান পেয়েছে। এ সময় রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু, রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল খালেক, নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাসেল জামান, ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সাংস্কৃতিক সম্মেলনে যোগ দিতে শুক্রবার বিকেলে বিমানযোগে রাজশাহীতে এসে পৌঁছেছেন ত্রিপুরা রাজ্য সরকারের মাননীয় মন্ত্রী শ্রী রামপ্রসাদ পাল ও তাঁর সহধর্মিণী এবং অন্যান্য ভারতীয়। হযরত শাহ মখদুম বিমানবন্দরে তাদের ফুল দিয়ে স্বাগত জানানো হয়।

এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, সংগঠিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. লাবে উদ্দিন লাভলু, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিয়াম, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুম মুবিন সবুজ সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

শুক্রবার দুপুর আড়াইটার পর ভারতের ৩১ সদস্যের প্রতিনিধি দল চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পৌছলে অতিথিদের ফুল দিয়ে স্বাগত জানানো হয়। পরে তারা চাঁপাইনবাবগঞ্জ সোনামসজিদে অবস্থিত বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাংগীরের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর আগে অতিথিবৃন্দ চাঁপাইনবাবগঞ্জে অবস্থিত পর্যটন মোটেলে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। সেখানে অতিথিবৃন্দকে স্থানীয় গম্ভীরা প্রদর্শন করা হয়। পরে তারা রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মহিলা আসনের সাংসদ এডভোকেট আদিবা আনজুম মিতা, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: আলী কামাল, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজি আব্দুল ওয়াদুদ দারা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি কোহলি কুদ্দুস মুক্তি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহিলা আসনের সাংসদ ফেরদৌসী ইসলাম জেসি, শিবগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিয়াউর রহমানসহ রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ আওয়ামী লীগ সহ সংগঠনটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশ-ভারত সাংস্কৃতিক মিলনমেলা চলবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, আগামীকাল ২৬ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ৯টায় সিএন্ডবি মোড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন, সকাল ১০টায় জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন। আমন্ত্রিত অতিথিদের অংশগ্রহণে সকাল সাড়ে ১১টায় নগরভবন গ্রিন প্লাজায় নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল সাড়ে ৪টায় আলোচনা সভা, সন্ধ্যা ৭টায় রাজশাহী কলেজ মাঠে বাংলাদেশ ও ভারতের খ্যাতিমান শিল্পীবৃন্দের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানটি সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

২৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ৯টায় বরেন্দ্র রিসার্চ মিউজিয়াম ও পুঠিয়া রাজবাড়ি পরিদর্শন, সকাল ১০টায় নাটোর উত্তরা গণভবনে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ। সন্ধ্যা ৭টায় রাজশাহী কলেজ মাঠে জাতীয় ও স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

২৮ ফেব্রুয়ারি সকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শন, ১০টায় তাহেরপুরে দুর্গামন্দির পরিদর্শন, দুপুর ১টায় বাঘা শাহী মসজিদ ও দরগা পরিদর্শন, বিকেল ৪টায় রাজশাহীতে প্রত্যাবর্তন ও চা চক্রে অংশগ্রহণ।

এদিকে চার দিনের সাংস্কৃতিক মিলনমেলা উপলক্ষে রাজশাহীকে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে। ব্যানার-ফেস্টুন, রঙিন পতাকা স্থাপন, রাজশাহী কলেজের সামনে থেকে জাদুঘর মোড় পর্যন্ত সড়ক আলোকায়ন, নগর ভবন, রাজশাহী কলেজ সহ, নগর বিভিন্ন সরকারি- বেসরকারি ভবন ও নগরীর সকল গুরুত্বপূর্ণ মোড় আলোকায়ন, আলপনা, রাস্তার ডিভাইভারগুলোতে রঙের কাজ সহ রাজশাহীকে নতুনভাবে সাজানো হয়েছে। রাজশাহীতে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here