সর্বজনীন পেনশন মিলবে যে উপায়ে

0
16
সর্বজনীন পেনশন মিলবে যে উপায়ে

বাংলাদেশি নাগরিকের জন্য সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে যাচ্ছে সরকার। আগামী ৬ মাস থেকে এক বছরের মধ্যেই ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সীদের জন্য এই পেনশন ব্যবস্থা চালু হবে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্যও একই সুযোগ রাখা হচ্ছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ও অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে ভার্চুয়ালি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

এর আগে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তনে জরুরি ভিত্তিতে আইন প্রণয়নে অর্থ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জানা গেছে, সর্বজনীন যে পেনশন ব্যবস্থা চালু হচ্ছে তাতে ১৮ বছর বয়সে যদি কেউ প্রতি মাসে এক হাজার টাকা করে চাঁদা প্রদান শুরু করে এবং ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত তা চালু থাকে, তাহলে ওই ব্যক্তি অবসরের পর ৮০ বছর বয়স পর্যন্ত প্রতি মাসে ৬৪ হাজার ৭৭৬ টাকা পেনশন পাবেন।

এই পরিমাণ পেনশন পেতে সেই ব্যক্তিকে ১৮ বছর বয়স থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত প্রতি মাসে এই চাঁদা জমা দিতে হবে।

বার্ষিক ১০ শতাংশ মুনাফা ও আনুতোষিক ৮ শতাংশ ধরে এই হিসাব করা হয়েছে।

কেউ ৮০ বছরের বেশি বেঁচে থাকলে তার ক্ষেত্রে হিসাবটা কত হবে, সেটি এখনও জানানো হয়নি। তবে তিনি যত দিন বেঁচে থাকবেন, ততদিনই পেনশন পাবেন। আর এই ৮০ বছর ধরা হয়েছে গড় আয়ুর হিসাব কষে। বর্তমানে দেশে গড় আয়ু ৭৩ বছর। ২০৭৫ সালে এটি ৮৫ হবে বলে ধরে নেয়া হয়েছে।

কেউ ৭৫ বছর বয়সের আগে মারা গেলে জমাকারীর বছর ৭৫ হওয়া পর্যন্ত তার নমিনি পাবেন এই পেনশন।

এই পদ্ধতিতে পেনশন পেতে আগ্রহীদেরকে প্রতি মাসে টাকা জমা করতে হবে। বেশি বছর ধরে টাকা জমা করলে পেনশনের পরিমাণ বেশি হবে। একজনকে সর্বনিম্ন ১০ বছর টাকা জমা করতে হবে।

কেউ যদি ৩০ বছর বয়সে টাকা জমানো শুরু করেন, এবং তিনি যদি মাসে এক হাজার টাকা জমান, তাহলে তার পেনশন কমে হবে ১৮ হাজার ৯০৮ টাকা।

তবে কেউ চাইলে এর চেয়ে বেশি চাঁদা জমা করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে তার প্রাপ্তিও বেশি হবে।

এটি একটি আনুমানিক হিসাব। প্রকৃত অবস্থা আইন ও বিধি প্রণয়ন এবং পেনশন কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠার পর বিস্তারিত জানা যাবে।

যাদের পক্ষে এই পরিমাণ অর্থ জমানো সম্ভব হবে না, তাদেরকে আর্থিক সহায়তা করবে সরকার নিজেই।

পেনশন তহবিলে যে টাকা জমা পড়বে, তার বার্ষিক মুনাফা ১০ শতাংশ ও আনুতোষিক ৮ শতাংশ ধরে এই হিসাব করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বুধবার বলেন, বাংলাদেশের মানুষের আয়ুষ্কাল ৭৩ বছর। ২০৫০ সালে সেটা হবে ৮০ বছর। ২০৭৫ সালে আমাদের প্রাক্কলনে দেখানো হয়েছে আমাদের আয়ুষ্কাল হবে ৮৫ বছর। এতে দেখা যায় আগামী ৩ দশকে মানুষ অবসর গ্রহণের পরেও আরও ২০ বছর তার আয়ু থাকবে। সে সময়ে তার আয় থাকবে না, কিন্তু তিনি বেঁচে থাকবেন। তাই তাদের দেখভালের জন্য কারো না কারো দায়িত্ব নিতে হবে। সরকার সে দায়িত্বটা নেবে।

তিনি বলেন, পেনশন ব্যবস্থা নিয়ে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই আরও বিস্তারিত আমি আপনাদের কাছে শেয়ার করবো। পর্যায়ক্রমে আমরা বাস্তবায়নে যাবো। এখানে কিছু সংযোজন বিয়োজন আছে অনেক জায়গায়। কিন্তু আমাদের মৌলিক ধারণাগুলো আজ তুলে ধরছি। ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী সব নাগরিক সর্বজনিন পেনশন ব্যবস্থায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীরাও এ ব্যবস্থায় অংশ নিতে পারবে। সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচরীদের বিষয়টি আমরা পরে বিবেচনা করবো। জাতীয় পরিচয়পত্রের ওপর ভিত্তি করে দেশের ১৮ থেকে ৫০ বছর পর্যন্ত সব নাগরিক পেনশন হিসাব খুলতে পারবেন। প্রাথমিকভাবে এ পদ্ধতি ঐচ্ছিক থাকবে, পরবর্তীতে বাধ্যতামূলক করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here