জানুয়ারিতে ৭০ ধর্ষণ

0
35
প্রেমিককে বেঁধে রেখে নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেফতার ৫
ফাইল ছবি।

অনলাইন ডেস্কঃ নারীদের সুরক্ষার্থে দেশে আইনি পদক্ষেপসহ নানান ব্যবস্থা নেয়া সত্ত্বেয় কমছে না ধর্ষণের মতো মারাক্তক অপরাধ। ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ২৭২ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ১০৬ কন্যাশিশু নির্যাতন এবং ১৬৬ জন নারী নির্যাতনের শিকার।

মোট ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদ।

মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) সংস্থাটির পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানা যায়।

মহিলা পরিষদ জানায়, পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ২৭২ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৭০ জন। যাদের মধ্যে ৩৯ জন কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার, ৬ জন কন্যাশিশু দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার, ১ জন কন্যাশিশু ধর্ষণের পর হত্যা ও ২ জন ধর্ষণের কারণে আত্মহত্যার শিকার হয়েছে। এ ছাড়াও ৫ জন কন্যাশিশুসহ ১০ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

মহিলা পরিষদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একজন কন্যাশিশুসহ ৩ জন শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে। ৩ জন কন্যাশিশুসহ ৫ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে।

এ ছাড়া এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছে ২ জন। ১২ জন কন্যাশিশুসহ ১৬ জন উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে। ৬ জন কন্যাশিশুসহ ১০ জন অপহরণের শিকার হয়েছে।

যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৮ জন। এর মধ্যে ১ জন কন্যাশিশুসহ ১২ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে চার কন্যাশিশুসহ মোট ১৩ জন। বিভিন্ন কারণে ৫ জন কন্যাশিশুসহ ৪৪ জনকে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়াও ৬ জন কন্যাশিশুসহ ১৮ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।

মহিলা পরিষদ জানায়, ৬ জন কন্যাশিশুসহ ৪৭ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ১ জন কন্যাশিশুসহ ৪ জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। ৪ কন্যাশিশুসহ সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছে ৬ জন। বাল্যবিবাহ সংক্রান্ত ঘটনা ঘটেছে ৪টি। এ ছাড়াও বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে অন্যরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here